@facebook (post in bengali)

বিয়ের পর ল্যাপটপটা রেখে এসেছি মালদাতে। আমার প্রেম কাহিনী সার্থক হলেও লং-ডিসটেন্স রিলেসনশিপ পুরোপুরি মুছে যায়নি জীবন থেকে। আজও ঘুম থেকে উঠে এবং ঘুমোতে যাওয়ার আগে Skype খোলা বাদ্ধতামুলক। এখন যে মায়ের সাথে দেখা হওয়ার এটাই উপায়! Technology-তে পটু বরের সাথে লং-ডিসটেন্স বেশ আরাম করেই উৎরে গেছি…..কিন্তু এ তো মা! অফিস-এ কম্পিউটার স্ক্রিন-এর দিকে তাকিয়ে দেদার টাইপ করতে পারলেও, ল্যাপটপটি ব্যবহার করতে তার ভারী আপত্তি: একেই দামি জিনিস, তার উপর আবার সেন্সর দেওয়া মাউসপ্যাড! “ও আমি ব্যবহার করবো না”, বলেছিলো মা, “নিজে জেনে শুনেই তো অত দুরে বিয়ে করছ, দু-বেলা ফোন করলেই হবে”… অভিমান হয়েছিল মায়ের, খুব কষ্ট থেকেই কথাগুলো বলেছিলো, বুঝতে পেরেছিলাম।

অষ্টমঙ্গলা থেকে ফেরার আগে আমার বর মায়ের একটা facebook ও Skype একাউন্ট খুলে দিয়েছিলো। জামাই এর উপর অভিমান দেখাতে না পেরে Skype-এ video call-এর পদ্ধতিটা শিখে ফেলতে হয়েছিলো মাকে। তারপর? শুরু হলো অন্য লং-ডিসটেন্স রিলেশনশিপ। Skype নির্ভরশীল হলাম আবার। কিন্তু ফেইসবুক? সে তো পিছিয়ে থাকার বান্দা নয়, অবশেষে মা-ও ধরা দেয় ফেইসবুক এর মায়াজালে-

“জানিস মনা, সবাই facebook করে, পম্পি, পুপু, রুম্পা, বৌদি..সবাই আছে..” সকাল সকাল Skype-এ মা।

-“তোমায় তো বললাম শিখে নিতে..তুমি-ই রাগ দেখিয়ে শিখলে না”।

-“আমার আর শিখে কি হবে? সবাই করে..শুনি।…. তাই বললাম”।

-“শিখবে? আমি শিখিয়ে দিতে পারি…এখান থেকেই”।

মায়ের মুখে উজ্জ্বল হাসি!

-“Screen Share কর..দেখিয়ে দিচ্ছি “।

-“share? সে আবার কেমন করে করে রে?”, প্রচুর confusion নিয়ে বলে মা।

যাই হোক, অবশেষে মা কে Screen Share শেখানো গেল । শুরু হলো ফেইসবুক অভিযান। Like, message, timeline, comment ইত্যাদি। প্রতিদিন অল্প অল্প করে। শেখাতে গিয়ে মাঝে মাঝে মেজাজও হারিয়েছি,”উফঃ! তুমি দেখছি কিছুই পারোনা।..কি করতে যে অফিসে বসে..”, “আরে, কার্সরটা কোথায় নিয়ে যাচ্ছো? বাঁ দিকে তো যাবে।”, বা বলেছি “আরো নিচে নামাও …আর একটু….এইটা আবার কোন পেজ খুলে ফেললে?”

ফেইসবুক শিখতে গিয়ে ধৈর্য হারিয়েছে মা-ও : “এরম ভাবে কথা বলবি না কিন্তু মনা…” , “তুই খুব বাজে teacher “, “তোর শেখানোর কোনো ইচ্ছেই নেই”, “আমি আর পারছিনা ! পরে আবার করবো…..।”

আস্তে আস্তে ফেসবুকে অভস্ত্য হয়ে গেছে মা। এখনো সে ভাবে রপ্ত করতে না পারলেও, ফেইসবুক জগতের আনাড়ি তাকে আর বলা যায় না । যখন দেখি মা অনেকের ছবিতে লাইক বা কমেন্ট করছে, তখন খুব শান্তিও পাই মনে মনে; যাক একা মানুষটা কিছু নিয়ে তো ব্যস্ত আছে।

‘ফেইসবুক গাইডেন্স ক্লাস’ শেষ হয়নি এখনো…Skype খুললেই কিছু সহজ প্রশ্ন নিয়ে হাজির হয় মা। হাসি মুখে মায়ের ক্লাস নিতে বেশ ভালোই লাগে। কিন্তু সেইদিন, আমার জন্মদিনে, মা যখন স্ট্যাটাস দিয়ে সবাইকে বলেছিলো আমায় শুভেচ্ছা জানাতে, খুব-ই-ই খুশি হয়েছিলাম। মায়ের লেখা সেই খাপছাড়া post-টা বোধয় আমার জন্মদিনের সেরা পাওনা। মন ভরে গিয়েছিলো আনন্দে, ছুটে গিয়ে বরকে বলেছিলাম সেদিন “দেখো আমার মা facebook শিখে গেছে..facebook শিখে গেছে!”

 

Advertisements

4 thoughts on “@facebook (post in bengali)

    • hello Verity, how are you? as you have understood by now, Bengali is my mother-tongue. I felt that my mother was not comfortable in reading my posts since they were all in English; so I made an attempt to write in bengali for her. The post tells how I taught my Mother to use facebook. It always feels good to hear from you 🙂

      Like

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s